সর্বশেষ সংবাদ
Home / জাতীয় / জাবিতে গভীর রাতে অবরুদ্ধ শিক্ষক অসুস্থ, অবরোধ প্রত্যাহার

জাবিতে গভীর রাতে অবরুদ্ধ শিক্ষক অসুস্থ, অবরোধ প্রত্যাহার

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষার দাবিতে গভীর রাত পর্যন্ত শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করেছেন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

রোববার বেলা ১১টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত বিভাগের সভাপতিসহ আট শিক্ষককে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অবরুদ্ধ করে রাখেন। দীর্ঘ ১৩ ঘণ্টা অবরোধের পর বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মনজুরুল হাসান অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাত ১২টার পর তাকে হাসপাতালের নেয়ার উদ্দেশ্যে বিভাগ থেকে বের করা হয়। আর এরই মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয় শিক্ষার্থীদের অবরুদ্ধ ও অবস্থান কর্মসূচি।

এর আগে ডায়াবেটিকস ও লো-প্রেসারে আক্রান্ত অধ্যাপক মনজুরুল হাসানের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাত ১০টার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন মেডিকেল অফিসার বিভাগে এসে তার শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন।

ডা. মো. শামসুর রহমান জানান, মনজুরুল হাসান সারাদিন না খাওয়ার ফলে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। রাত পৌনে ২টার সময় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জানা যায়, অধ্যাপক মনজুরুল হাসান তার ধানমণ্ডির বাসার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা অনেকটা ভালো ছিল বলেও জানা গেছে।

বিভাগীয় সূত্রে জানা যায়, ৩ সেপ্টেম্বর থেকে ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষকদের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জেরে ‘একাডেমিক সভা না হওয়ার অজুহাতে’ অঘোষিতভাবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করেন বিভাগের অধিকাংশ শিক্ষক। ফলে ঈদুল আজহার পর কার্যত স্থবির ছিল এ বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম।

নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা না পেয়ে শিক্ষার্থীরা রোববার সকাল থেকেই বিভাগে জড়ো হতে থাকেন। বেলা ১১টার দিকে তারা বিভাগের অন্তত ১০ শিক্ষককে আটকে রেখে গেটে তালাবদ্ধ করে দেন।

পরে দুই-তিনজন শিক্ষককে বের হতে দিলেও দীর্ঘ সময় অবরুদ্ধ থাকেন আট শিক্ষক।

এর মধ্যে বিকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনা করে সফল হতে পারেননি সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিনের নেতৃত্বে বিভাগের শিক্ষকরা।

এ ছাড়া রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নূরুল আলম ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করে সমঝোতায় আসতে ব্যর্থ হন।

এর পর দীর্ঘ সময় পর অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক রাশেদা আখতার ও প্রক্টর বিভাগের সভাপতি, অবরুদ্ধ শিক্ষক ও আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করে শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়। অবশেষে বিভাগের সভাপতি গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে বের হতে দেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় বিভাগের শিক্ষার্থীদের আগামী ২০ সেপ্টেম্বর ক্লাস-পরীক্ষায় বসাতে পারবেন বলে আশ্বাস দেন অনুষদের ডিন।

এ ছাড়া আগামী ২০ সেপ্টেম্বর একাডেমিক সভা বসার কথা জানিয়েছেন বিভাগের সভাপতি।

উল্লেখ্য, হাইকোর্টের এক নির্দেশে এ বছরের ২৬ জুলাই বিভাগের সভাপতির দায়িত্ব নেন অধ্যাপক মো. মনজুরুল হাসান। বিভাগের শিক্ষকদের দাবি, দায়িত্ব নিয়ে তিনি কোনো একাডেমিক সভা ডাকেননি। এই অজুহাতে বিভাগের অধিকাংশ শিক্ষক ৩ সেপ্টেম্বর থেকে অঘোষিতভাবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কুমিল্লায়-১: ড. মান্নান জয়ের নির্বাচনী পথসভা

হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ড. আবদুল ...

Skip to toolbar