সর্বশেষ সংবাদ
Home / লাইফস্টাইল / ৭ ধরনের পুরুষ সুখে ভরিয়ে দিতে পারে সঙ্গীর জীবন

৭ ধরনের পুরুষ সুখে ভরিয়ে দিতে পারে সঙ্গীর জীবন

পুরুষের প্রতি নারীর অভিযোগের শেষ নেই। নারীর দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে পুরুষ প্রতারণা করে, ফেলে চলে যায়, যখন-তখন বিচ্ছেদ ঘটায়-আরও কত কী।

কিন্তু তাই বলে কি সব পুরুষের ক্ষেত্রেই খাটবে এ অভিযোগ? এমনটি হলে কি পৃথিবী টিকে থাকত।

কিছু পুরুষ এমনও আছেন, যারা সুখে ভরিয়ে দিতে পারেন প্রেয়সীর জীবন। যার হাত ধরে নিশ্চিন্তে সারাজীবন পার করে দেয়া যায় বিবাদ ছাড়াই।

আসুন জেনে নিই সেই পুরুষদের সম্পর্কে-

*সম্পর্ক গড়ার আগে প্রথম আকর্ষণের ক্ষেত্রে অবশ্যই সৌন্দর্য একটি জরুরি বিষয়৷ কিন্তু জীবন চলার পথে যিনি সৌন্দর্যকে প্রাধান্য দেন না, তিনিই আদর্শ পুরুষ৷ কারণ সৌন্দর্য একটি কুহেলিকা। জীবনে কঠিন বাস্তবতায় সৌন্দর্যের আকর্ষণ একটি সময় মিইয়ে যায়।

যে পুরুষ কেবল সৌন্দর্যের কারণেই নারীকে ভালোবাসেন, তিনি আরও সুন্দরী কাউকে দেখলে তার প্রেমে পড়বেন সেটিই স্বাভাবিক৷ নারীকে সুখী করতে পারেন, একমাত্র সেই ধরনের পুরুষ, যারা শারীরিক সৌন্দর্যের তুলনায় সঙ্গীর মনের সৌন্দর্যকে প্রাধান্য দেন৷

* যে পুরুষ শুধু যৌনতার মধ্যেই সুখ খোঁজেন, তিনি কখনই আদর্শ পুরুষ হতে পারেন না। এর বিপরীত চরিত্রের পুরুষ আদর্শ সঙ্গী।

* যে পুরুষ সম্পর্কে সৎ থাকেন, তাদের কাছ থেকে নারীর প্রতারিত হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই৷ কারণ তিনি ভালোবাসলেও যেমন সহজভাবে বলবেন, তেমনই ভালো না বাসলেও সোজাসাপ্টাভাবেই জানিয়ে দেবেন৷

এ ধরনের পুরুষ মনের মধ্যে গোপন সন্দেহ লুকিয়ে না রেখে সরাসরিই আপনাকে জানাবেন৷ এমন পুরুষ ভালোবেসে যাকে বিয়ে করবেন, তার সঙ্গে গোটা জীবন কাটিয়ে দেয়া যাবে নির্দ্বিধায়৷

* যে পুরুষ স্বার্থপর, তিনি কখনই আদর্শ সঙ্গী হতে পারেন না। কারণ সঙ্গীর মন বা সুবিধা-অসুবিধা বোঝার জন্য তিনি তৈরি নন।

*বিয়ের আগে তিনি একরকম কথা বলতেন, আর বিয়ের পরেই সব বদলে গেল৷ পুরুষদের নিয়ে এটিই মেয়েদের সবচেয়ে বড় অভিযোগ৷ তাই এ ক্ষেত্রে নারীকে এমন পুরুষ বেছে নেয়া প্রয়োজন, যিনি ব্যক্তিগত জীবনে কথা ও কাজের মধ্যে সামঞ্জস্য বজায় রাখবেন৷

একটি কথা মনে রাখবেন- যে মানুষ দৈনন্দিন জীবন কথার সঙ্গে কাজের সামঞ্জস্য রাখতে পারেন না, তিনি সম্পর্কের ভারসাম্যও বজায় রাখতে পারেন না৷

*পৃথিবীতে অনেক পুরুষ আছে, যারা নিজের সঙ্গী কিংবা প্রেয়সীকে সবার সামনে স্বীকৃতি দিতে দ্বিধাবোধ করেন৷ এই পুরুষের বিপরীত পুরুষরাই হলেন একেবারে আদর্শ৷

আদতে যে পুরুষ নিজের প্রেমিকাকে স্বীকৃতি দিতে জানেন, সম্মান দিতে জানেন; তিনি স্ত্রীকেও তার সঠিক সম্মান দিতে পারবেন।

*যে পুরুষের জীবন তার স্ত্রী বা পরিবারের মধ্যেই আবদ্ধ, তিনিই আদর্শ পুরুষ৷ যে পুরুষ সুখ বলতে সবাই মিলে একসঙ্গে ভালো থাকাকে বোঝেন, তিনিই নারীর জীবনে এক লহমায় সুখ এনে দিতে পারদর্শী৷ এ ধরনের পুরুষই নারীর স্বামীরূপে কাম্য৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

হাত-পায়ের চামড়া ওঠলে কী করবেন?

শীতের হাতের পায়ের চামড়া ওঠা স্বাভাবিক মনে হলেও সারা বছর যদি এই ...

Skip to toolbar