আমতলী থানার ওসির বিরুদ্ধে ‘হেফাজতে মৃত্যু আইনে’ মামলা

বরগুনার আমতলী থানা হেফাজতে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি শানু হাওলাদারের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় প্রত্যাহার হওয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশারসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলা নিয়েছে পুলিশ। নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন-২০১৩ এর ১৫ ধারায় এ মামলা নেওয়া  হয়।বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) থানা পুলিশ কর্তৃক মামলা গ্রহণের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান। বুধবার (১ এপ্রিল) রাতে বরগুনার পুলিশ সুপারের নির্দেশে আইনজীবী ইশরাত হাসানের দায়ের করা অভিযোগ আমতলী থানার ওসি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করেন।  ইশরাত হাসান বলেন, ‘বুধবার রাতে বরগুনার পুলিশ সুপার তার সরকারি ইমেইল থেকে আমাকে মামলা নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।’আমতলী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান যে অভিযোগ দায়ের করেছেন পুলিশ সুপারের নির্দেশে তা আমরা নথিভুক্ত করেছি।’এর আগে, গত ৩০ মার্চ রাতে সন্দেহভাজন আসামি শানু হাওলাদারের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় প্রত্যাহার হওয়া ওসি আবুল বাশারসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন-২০১৩ এর ৬ ও ৭ ধারায় আইনজীবী ইশরাত হাসান এ অভিযোগ দায়ের করেন।ওইদিন ইশরাত হাসান বলেছিলেন, ‘শানু হাওলাদার গত চারদিন হলো মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। এ কারণে দেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে আমি লিখিতভাবে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছি। এক প্রশ্নের জবাবে ইশরাত হাসান বলেন, ‘সারাদেশ অঘোষিত লকডাউন অবস্থায় রয়েছে। এ অবস্থায় ৩০ মার্চ সন্ধ্যা ৬টা ৩৭ মিনিটে বরগুনার পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সরকারি ইমেইলে লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছি।’২৬ মার্চ বরগুনার আমতলী থানা থেকে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি শানু হাওলাদারের (৫৫) ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওসি আবুল বাশারকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। একইসঙ্গে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও সহকারী উপপরিদর্শক আরিফ হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।ময়নাতদন্ত শেষে ২৬ মার্চ রাত ১১টার দিকে শানু হাওলাদারের মরদেহ তার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ ৩ লাখ টাকা দাবি করেছিল। সেই টাকা না পেয়ে শানুকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে। পুলিশের দাবি, শানু হাওলাদার আত্মহত্যা করেছেন।এ ঘটনায় বরিশাল রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মো. শফিকুল ইসলামের নির্দেশে রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি একেএম এহসান উল্লাহকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন- বরিশাল রেঞ্জের পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমান ও বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. শাহজাহান হোসেন। ব্রেকিংনিউজ/ কেআই/ এসএ 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com