করোনার ঝুঁকি কমায় মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব: দ্য ল্যানসেট

মাস্ক পরলে ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চললে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করা যায়, কিন্তু হাত ধোয়া ও অন্য সতর্কতামূলক পদক্ষেপও প্রয়োজন বলে নতুন এক গবেষণায় দাবি করা হয়েছে।

চিকিৎসা সাময়িকী দ্য লানসেটে প্রকাশিত একটি গবেষণায় গবেষকরা বলেছেন, সার্জিক্যাল মাস্কের চেয়ে এক স্তরের কাপড়ের মাস্ক কম কার্যকরী। তবে সবচেয়ে নিরাপদ আঁটসাঁট এন৯৫ মাস্ক।

দুজন মানুষের মাঝে এক মিটারের (তিন ফুটের চেয়ে বেশি) দূরত্বে ভাইরাস সংক্রমণের বিপদ এড়ানো যায়, তবে দুই মিটারের (সাড়ে ৬ ফুট) দূরত্ব সবচেয়ে ভালো।

চোখের নিরাপত্তায় চশমা বা বিশেষ চশমা উপকারী। বিশ্লেষণ অনুযায়ী, সব কৌশল যে শতভাগ কার্যকরী তা নয় এবং আরও বেশি গবেষণা প্রয়োজন ।

সার্স-কোভ-২ ভাইরাস একেবারে নতুন বলে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রম (সার্স) ও মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিন্ড্রমের (মার্স) ওপর ভিত্তি করে এই গবেষণা করা হয়েছে।

এনিয়ে আরো বিশদ গবেষণা হচ্ছে কানাডা ও ডেনমার্কে। আপাতত দ্য ল্যানসেটের গবেষণায় নিশ্চিত করা হয়েছে করোনা রোধে মাস্ক কার্যকরী। মাস্ক নিয়ে জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা পরস্পরবিরোধী পরামর্শ দিয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরুতে বলেছিল, স্বাস্থ্যবান একজন মানুষকে শুধু তখনই মাস্ক পরা উচিত যখন কোভিড-১৯ রোগীর দেখভাল করছেন।

দোকানে কেনাকাটা বা ওই ধরনের পরিস্থিতিতে যদি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা কঠিন হয়, তখন অন্তত কাপড়ের মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র। তবে বেশ কয়েকটি দেশ এরই মধ্যে ঘরের বাইরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com