‘কোচ হিসেবে পন্টিং ছিল জাদুকর’

অধিনায়ক এবং ক্রিকেটার হিসেবে রিকি পন্টিংয়ের সাফল্য বেশ ঈর্ষা জাগানিয়া। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হিসেবে টানা দুটি বিশ্বকাপ জেতা অধিনায়ক তিনি। আর ব্যাট হাতে ২০০৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলা মহাকাব্যিক ইনিংস তো রয়েছেই। এছাড়া টেস্ট, ওয়ানডে ফরম্যাটে ব্যাট হাতে রানের ফোয়ারা ছুটিয়েছেন।

এবার কোচ হিসেবেও দারুণ এক সম্মান পেলেন পন্টিং। ২০১৫ সালে আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সে কোচিং দিয়ে যাত্রা। সে বছরই দলকে শিরোপা জেতাতে সহায়তা করেন। এছাড়াও ২০১৯ সালের আইপিএলে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসকে প্রথমবারের মতো কোয়ালিফায়ার খেলার যোগ্যতা অর্জন করান। যদিও কোচ পন্টিংকে নিয়ে গণমাধ্যমে আলোচনা হয়নি তেমন। তবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত শর্মা প্রশংসা করলেন কোচ পন্টিংয়ের।

হোম কোয়ারেন্টাইনে সময় কাটানোর জন্য ভিডিও লাইভে এসে সময় পার করছেন ক্রিকেটাররা। সেখানে কেভিন পিটারসেনের সঙ্গে কথা বলার সময় পন্টিং বন্দনায় মাতেন রোহিত। ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার পিটারসেন রোহিতের কাছে জানতে চান, এ যাবতকালে যত কোচের অধীনে খেলেছেন তিনি, তাদের মধ্যে সেরা কে? এর উত্তরে রোহিত বলেন,

‘অনেকের মধ্যে একজনকে বেছে নেওয়া সত্যিই কঠিন কাজ। কারণ সবাই নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল। তবে আমার কাছে রিকি পন্টিং ছিলেন জাদুর মতো। যেভাবে তিনি দলকে নিয়ন্ত্রণ করতেন, তা অসাধারণ। এছাড়াও ২০১৩ সালের আইপিএলে উনি অধিনায়ক ছিলেন। সেখান থেকে আসরের মাঝপথে নিজে জায়গা ছেড়ে আমাকে অধিনায়কত্ব দিয়েছেন। এটা করতে সাহস লাগে।’

রোহিত আরো যোগ করেন, ‘এরপরে দলের কোচিং স্টাফে কাজ করার সময় তিনি যেভাবে তরুণদের সাহায্য করেছেন। আমায় অধিনায়ক্ত্ব করার ক্ষেত্রে যেভাবে গাইড করেছেন। এটা অসাধারণ। আমি উনার থেকে অনেক কিছু শিখেছি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com