পাইকারিতে আদা-রসুনের দাম কমলেও খুচরায় প্রভাব নেই

রাজধানীর পাইকারি পর্যায়ে আদা ও রসুনের দাম কমতে শুরু করলেও খুচরা পর্যায়ে প্রভাব পড়েনি। একমাসের ব্যবধানে রাজধানীর খুচরা বাজারে আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ১৫০ টাকা। আর রসুনের দাম বেড়েছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। চলমান লকডাউনের মাঝে বেশিরভাগ পণ্যের দাম স্বাভাবিক থাকলেও রমজানের অজুহাতে কয়েকগুণ বেড়েছে আদা ও রসুনের দাম। সরকারি সংস্থা টিসিবির তথ্যমতে, এক মাসের ব্যবধানে সবধরনের আদার দাম বেড়েছে ১১৫ শতাংশেরও বেশি। আর দেশি রসুনের দাম বেড়েছে ৫২ শতাংশের বেশি। যদিও রাজধানীর শ্যামবাজারে কিছুটা কমতির দিকে আদার দাম। প্রতি কেজি চায়না আদা বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকায়। আড়ৎদারদের দাবি, বন্দরে সময় মতো খালাশ না হওয়ায় দাম বেড়েছিলো। সরকার পদক্ষেপ নেয়ায় কমেছে।

কাওরানবাজারে একই আদা বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়। রসুন বিকোচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা দরে। বিক্রেতাদের অভিযোগ, আড়ৎদাররায় কারসাজি করে দাম বাড়িয়েছিলো। পাইকারিতে দাম কমলেও এখনও প্রভাব নেই খুচরা বাজারে। প্রতি কেজি আদা বিক্রি হচ্ছে ৩২০ থেকে ৩৫০ টাকা দরে। আর রসুনে চাওয়া হচ্ছে ১২০ থেকে ১৭০ টাকা। বিশ্লেষকরা বলছেন, পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও রমজানে আদা ও রসুনের বাড়তি চাহিদার সুযোগ নিচ্ছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। দাম স্থিতিশীল রাখতে দরকার সরকারের নজরদারি। সরকারি হিসাবে আদার আমদানি পর্যায়ে গড়মূল্য প্রতি কেজি ৮০ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com