ফাঁসিই হওয়া উচিত স্পট ফিক্সারদের শাস্তি: মিয়াদাদ

পাকিস্তান ক্রিকেট আর বিতর্ক যেন একই সুতোয় গাঁথা। এবারের বিতর্ক স্পট ফিক্সার শারজিল খানকে ঘিরে। আর এ নিয়ে বিস্ফোরক এক মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি ক্রিকেটার জাভেদ মিয়াদাদ।

মূলত, স্পট ফিক্সিংয়ের দায়ে পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা পান শারজিল। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে ফিক্সিংয়ের চেষ্টা ও পাকিস্তান সুপার লিগে ফিক্সিং করার জন্য এই শাস্তির মুখে পড়েন তিনি। তবে বছর দুয়েকের মাথায় শারজিলের অনুরোধের ভিত্তিতে তার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

শারজিল খানের প্রতিভার কথা বিবেচনায় এনে তাকে ক্ষমা ঘোষণা করে পিসিবি। এমনটাই শোনা যাচ্ছিলো। তবে বিষয়টি ভালো ভাবে নেননি পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সদস্য ও সাবেক অধিনায়ক মোহামদ হাফিজ। টুইটারে তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘পাকিস্তান ক্রিকেটের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য প্রতিভার চেয়েও সততাকে মূল্য দিতে পারি না আমরা?’

হাফিজের এমন মন্তব্য পছন্দ হয়নি পিসিবির বর্তমান প্রধান নির্বাহী ওয়াশিম খানের। তিনি হাফিজকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ভালো-মন্দের বিচার না করে, বরং নিজের চরকায় তেল দাও।’

ওয়াশিম খানের এমন মন্তব্যের বিরুদ্ধের দাঁড়িয়েছেন মিয়াদাদ। তিনি সমর্থন জানিয়েছেন হাফিজকে। তিনি বলেন, ‘পিসিবি স্পট ফিক্সারদের ক্ষমা করে দিয়ে কাজটা ঠিক করছে না। যে সব মানুষ এমন খেলোয়াড়দের আবার ফিরিয়ে আনছে, তাদের লজ্জা থাকা উচিত।’

শুধু তাই নয়, স্পট ফিক্সারদের শাস্তি নিষেধাজ্ঞা নয় বরং হওয়া উচিত ফাঁসি। এমনটাই বলেন মিয়াদাদ, ‘যারা স্পট ফিক্সিং করে থাকে, তাদের কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত। তাদের ফাঁসিতে ঝুলানো উচিত। কারণ, স্পট ফিক্সিং হত্যার মতো ঘৃণিত কাজ। তাই শাস্তিও তেমন কঠোর হওয়া উচিত। এমন উদাহরণ তৈরি করে যেতে পারলে, কোনো খেলোয়াড় আর স্পট ফিক্সিং করার সাহস পাবে না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com