মানিকগঞ্জে নদীর পানি আবার বাড়ছে

মানিকগঞ্জে প্রধান নদী যমুনাসহ অভ্যন্তরীণ নদীর পানি আবার বাড়তে শুরু করেছে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়ে পানিবন্দি পরিবারের সংখ্যা বাড়ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় শিবালয় উপজেলায় যমুনা নদীর আরিচা পয়েন্টের পানি ১৪ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৬৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

শনিবার (২৫ জুলাই) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মানিকগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজ রিডার (পানির স্তর পরিমাপক) মো. ফারুক আহম্মেদ এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, শুক্রবার (২৪ জুলাই) সকালে এ পয়েন্টে পানি আগের দিনের চেয়ে ৪ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ৫১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হলেও দুপুরের পর থেকে পানি আবার বাড়তে শুরু করে।

আরিচা পয়েন্টে চলতি বন্যায় ১৯ জুলাই বিপৎসীমার সর্বো্চ্চ ৭২ সেন্টিমিটিার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এত চরাঞ্চলে বন্যা অবস্থার সৃষ্টি হয়।

ঘিওর উপজেলার কালীগঙ্গা নদীর তরা পয়েন্টের গেজ রিডার মো. রফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার (২৪ জুলাই) সকাল পর্যন্ত এ পয়েন্টে পানি আগের দিনের চেয়ে কিছুটা কমলেও গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ সেন্টিমিটার বেড়ে শনিবার (২৫ জুলাই) সকালে বিপৎসীমার ১০০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিনি জানান, কয়েকদিন আগে এ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৯৮ সেন্টিমিটার ওপর দিনে প্রবাহিত হওয়ার পর থেকে পানি কমতে শুরু করে। শুক্রবার (২৪ জুলাই) থেকে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার ধলেশ্বরী নদীর জাগীর পয়েন্টের গেজ রিডার মো. বদর উদ্দিন বলেন, প্রতিদিন এ পয়েন্টে ২ থেকে ৩ সেন্টিমিটিার পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ২ সেন্টিমিটার বেড়ে শনিবার (২৫ জুলাই) সকালে বিপৎসীমার ৮২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অন্যান্য নদীতে পানি বাড়ার পরে এ পয়েন্টের পানি বেড়েই চলেছে বলে জানান তিনি।

মানিকগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাইন উদ্দিন জানান, শুক্রবার (২৪ জুলাই) থেকে জেলার সবগুলো নদীর পানি আবার বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে।

বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলের প্রভাবে পানি বৃদ্ধি আগস্ট মাসের শুরু পর্যন্ত থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com