‘সাহেদকে গ্রেপ্তারে সীমান্তে বাড়ানো হয়েছে নজরদারি’

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমকে গ্রেপ্তারে মৌলভীবাজারের সব সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। পাশাপাশি তাকে গ্রেপ্তারে রাতভর শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন চা-বাগান, গভীর জঙ্গল ও রিসোর্টে অভিযান চালিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুছ ছালেক রাইজিংবিডিকে এ তথ‌্য নিশ্চিত করেছেন।

ওসি বলেন, ‘সাহেদের এখনও খোঁজ মেলেনি। তাকে গ্রেপ্তার রাতভর অভিযান চালানো হয়েছে। জেলার সব সীমান্ত, রিসোর্ট, হোটেল মোটেলেও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।’

সাহেদ মৌলভীবাজারে অবস্থান করছে এমন তথ্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আসলে ১৩ জুলাই বিকেল ৫টা থেকে তারা জেলার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান শুরু করে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পুলিশের কাছে খবর আসে সাহেদ মৌলভীবাজারের চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যেতে পারেন। সে সন্দেহে কমলগঞ্জের শমশেরনগরে আকস্মিক পুলিশি তৎপরতা শুরু হয়। শমশেরনগর চৌমুহনা থেকে ভারতের ত্রিপুরাগামী সড়কের মুখে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা যানবাহন তল্লাশি শুরু করে।

শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ অরূপ কুমার চৌধুরী রাইজিংবিডিকে জানান, খবর আছে সাহেদ চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা প্রবেশ করতে পারেন। তাই সতর্কতামূলকভাবে শমশেরনগরে তদারকি চলছে।

এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল র‌্যাব-৯ এর স্কোয়াড কমান্ডার সুমেন মজুমদার জানান, সাহেদকে গ্রেপ্তারে এখনও শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি করা হচ্ছে। চেকপোস্টগুলোতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, তিন কোটি ৬৮ লাখ টাকা জালিয়াতির পৃথক দুই মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। সোমবার (১৩ জুলাই) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মইনুল ইসলাম এ পরোয়ানা জারি করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com