হবিগঞ্জের মৃৎশিল্পীদের দিন কাটছে অনাহারে

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার কাজিরখিল ও খনকারিগাঁও গ্রামের ২৫টি মৃৎশিল্পী পরিবারের সদস্যরা অর্ধাহারে-অনাহারে দিন পার করছেন। দেশে করোনা পরিস্থিতির কারণে তাদের তৈরিকৃত পণ্য বিক্রি করতে না পেরে দুর্দিনে পড়েছেন তারা।

কয়েকমাস ধরে করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে দেশে কার্যত অবরুদ্ধ অবস্থা চলছে। হাট-বাজারে লোক সমাগম কমে গেছে। এতে কাজিরখিল গ্রামের ১৩টি ও খনকারিগাঁও গ্রামের ১২টি মৃৎশিল্পী পরিবার তাদের তৈরিকৃত জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারছেন না। কিছু কিছু বিক্রি হলেও সঠিক মূল্য পাওয়া যাচ্ছে না।

মৃৎশিল্পী গৌপেন্দ্র পাল, মনিন্দ্র রুদ্র পাল, মিনতি রুদ্র পালসহ কয়েকজন বলেন, এ পরিস্থিতিতে তারা দিশেহারা। কঠোরশ্রমে তৈরি জিনিসগুলো বিক্রি করতে পারছেন না। এরপরও সুদিনের আশায় কিছু কিছু জিনিস তৈরি অব্যাহত রেখেছেন।

স্থানীয় সমাজসেবক কাজী মাহমুদুল হক সুজন বলেন, কুমারপাড়ার মানুষের অর্ধাহারে-অনাহারে থাকার বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কুমারপাড়া পরিদর্শন করে সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সত্যজিত দাশ রায় বলেন, তাদের তৈরি মাটির কলস ক্রয় করবে উপজেলা প্রশাসন। এসব কলস কালেঙ্গা ও সাতছড়ি বনের গাছের ডালে স্থাপন করা হবে। নানা প্রজাতির পাখি সেই কলসে নিরাপদে বাসা তৈরি করবে। এতে পাখির সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। কলস বিক্রি করে মৃৎশিল্পীরাও আর্থিকভাবে লাভবান হবেন।

পরিকল্পনা অনুযায়ী দ্রুত কলসগুলো ক্রয় করা হবে বলেও জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরো বলেন, দেশের করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মাধ্যমে মৃৎশিল্পীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। তাদের ঋণের ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com