৯০ ভাগ মানুষকে দিতে হবে প্রণোদনার অর্থ : সিপিবি

প্রণোদনার টাকার সিংহভাগ সরাসরি কৃষক, শ্রমজীবী, ক্ষুদ্র ও মধ্য বিনিয়োগকারীদের দেওয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)।

সংগঠনটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রণোদনার টাকার সিংহভাগ সরাসরি কৃষক এবং স্বনিয়োজিত ও ক্ষুদে বিনিয়োগকারীসহ ৯০ শতাংশ মানুষকে দিলে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের কাজটি সবচেয়ে সহজে, সবচেয়ে দ্রুত, সবচেয়ে জনকল্যাণমূলকভাবে ও সবচেয়ে নিশ্চিতভাবে সম্ভব হবে।

রোববার (৫ এপ্রিল) বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির ‘সিপিবি কোভিড-১৯ রেসপন্স টিম’ এর প্রাত্যহিক টেলি সভায় প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণের প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলা হয়।

সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমের সভাপতিত্বে সভায় অংশ নেন সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোহাম্মদ শাহ আলম, টিমের সমন্বয়ক ও সহকারী সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, প্রেসিডিয়াম সদস্য লক্ষ্মী চক্রবর্তী, আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, সম্পাদক আহসান হাবিব লাবলু, জলি তালুকদার ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. ফজলুর রহমান।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘করোনাভাইরাস মহামারির কারণে হওয়া দেশের আর্থিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকার ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। দেশের অর্থনীতিকে টিকিয়ে রাখতে যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি, অর্থনীতির ক্ষতি পুষিয়ে নিতে হলে তাদের ওপরেই প্রধানত নির্ভর করতে হবে। তাই, প্রণোদনা প্যাকেজের প্রধান অংশ সরাসরি তাদেরকেই দিতে হবে।

তারা বলেন, আমাদের দেশের অর্থনীতি টিকে আছে প্রধানত মেহনতি কৃষক, গার্মেন্টস শ্রমিক, শ্রমজীবী মানুষ, প্রবাসী শ্রমিক-কর্মচারীদের অবদানে। সুতরাং করোনা মহামারিজনিত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সরকার ঘোষিত প্যাকেজের সিংহভাগ সরাসরি তাদেরকে দিতে হবে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যারা বলেন, ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বিনিয়োগকারীদের প্রণোদনা দিতে হবে, তাদের জানা উচিত, হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক ব্যক্তি খাতের লুটেরা বিত্তবানরাই কেবল বিনিয়োগকারী নয়। দেশের সবচেয়ে বড় ব্যক্তি খাত হলো কৃষি এবং সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী হলো দেশের কোটি কোটি কৃষক। সে কারণে প্রণোদনার বড় অংশ কৃষি ও কৃষকেরই প্রাপ্য।

সিপিবির নেতৃবৃন্দ বলেন, আমাদের দেশে অর্থনীতির একটি বড় অংশ স্বনিয়োজিত ও ক্ষুদে বিনিয়োগের বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন। কৃষি ও স্বনিয়োজিত ক্ষুদে বিনিয়োগকারীরা মোট বিনিয়োগকারীর মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ। সেই সাথে গার্মেন্টসহ শ্রমজীবীদের যুক্ত করলে, এরাই হবে সংখ্যায় দেশের জনসংখ্যার ৯০ শতাংশের বেশি।

তারা বলেন, ৯০ শতাংশ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারার ওপরই নির্ভর করবে অর্থনীতির চাঙ্গা হয়ে ওঠা। প্রণোদনার টাকার সিংহভাগ এদেরকে দিতে পারলেই করোনাভাইরাস মহামারিজনিত অর্থনৈতিক ক্ষতি পুষিয়ে ওঠার কাজটি সবচেয়ে সহজে, সবচেয়ে দ্রুত, সবচেয়ে জনকল্যাণমূলকভাবে ও সবচেয়ে নিশ্চিতভাবে সম্ভব হবে।

তারা বলেন, অর্থনৈতিক শক্তি পুনরুদ্ধারের জন্য উদ্যোক্তা শ্রেণির মাঝারি বিনিয়োগকারীদেরও ভূমিকা পালনের সুযোগ আছে। তাদেরও প্রণোদনার অর্থ দিলে তা কাজে আসবে।

সিপিবির নেতারা সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন, প্রণোদনার ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার সিংহভাগ সরাসরি কৃষক, শ্রমজীবী, ক্ষুদে ও মধ্য বিনিয়োগকারীদের না দিয়ে যদি তা হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক লুটেরা ধনিকদের দেওয়া হয়, তাহলে সে টাকার বেশিরভাগটাই তারা বিদেশে পাচার করে দিবে অথবা ভোগ-বিলাসে অপচয় করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

সম্পাদকঃ শারমিন আক্তার, প্রকাশকঃ মোঃ এনামুল হক, হুজাইফা এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড কর্তৃক চৌধুরী মল ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক (হাটখোলা রোড), টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩ হতে প্রকাশিত। ফোন-ফ্যাক্স: ৭১২৫৩৮৬। । ই-মেইল: tatkhonik@gmail.com