সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / ভাঙ্গায় এমপি নিক্সন চৌধুরী ও কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে সংর্ঘষ

ভাঙ্গায় এমপি নিক্সন চৌধুরী ও কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে সংর্ঘষ

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমার চৌধুরী নিক্সন ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। মঙ্গলবার রাত থেকে থেমে থেমে বুধবার সকাল পর্যন্ত সংর্ঘষ চলে। এতে উভয় পক্ষের একাধিক অফিস ভাংচুর করা হয় এবং সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন গুরুত্বর আহত হয়।
আহতদের স্থানীয় জনতা ও থানা পুলিশ উদ্ধার করে ভাঙ্গা হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে গুরুত্বর আহতরা হলো সোহাগ মোল্লা (২৫), দেলোয়ার হোসেন (৩০), শাহেন শাহ (৩০), কামাল মাতুব্বর। এমপি নিক্সন চৌধুরীর সর্মথকদের মধ্যে টোকন মাতুব্বর নামে একজন আহত হয়।
এ ব্যাপারে ভাঙ্গা থানায় উভয় পক্ষই মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মিরাজ হোসেন জানান, এমপি মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন এর চৌকিঘাটা জনসভার পর জনগণ যার যার বাড়ীতে ফেরার সময় ঘারুয়া বাজারে প্রথম সংঘর্ষ শুরু হয়। এই খবর সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে তা ভাঙ্গা টাউনেও ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনি।
তিনি আরও জানান, বুধবার সকালে ঘারুয়া বাজারে পুনরায় সংর্ঘষ শুরু হলে ফরিদপুর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এনে পরিস্থিতি শান্ত করি। বর্তমানে উপজেলা চত্বর, ঘারুয়া বাজার সহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি এখন কিছুটা শান্ত রয়েছে।
জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকালে ভাঙ্গা পৌরসদরের চৌকিঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এমপি নিক্সন চৌধুরীর জনসভা ছিল। দুপুর হতেই জনসভা স্থলে হাজারো জনতার উপস্থিতি ছিলেন। সন্ধ্যার আগ মুহূর্তে জনসভা শেষ হলে নেতাকর্মীরা নিজ নিজ বাড়িতে ফিরতে শুরু করেন। ঘারুয়া ইউনিয়নে এমপি নিক্সন চৌধুরীর সমর্থকরা শরীফাবাদা স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি মতিয়ার রহমান ও আওয়ামী লীগ নেতা নিরু খলিফার নেতৃত্বে শত শত লোকজন যাচ্ছিল।
পথিমধ্যে ঘারুয়া বাজার সংলগ্ন এলাকায় ওঁৎ পেতে থাকা ঘারুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফি মোল্লার লোকজন হামলা চালিয়ে মারধর করে। এ সময় বেশ কয়েকজন আহত হয়। এ খবর ভাঙ্গা শহরে পৌঁছলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। রাতভর থেমে থেমে উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকে।
সকালে ঘারুয়া ইউনিয়নে মতিয়ার রহমান ও নিরু খলিফার হাজারো লোকজন কাজী জাফরউল্লাহর লোকজনকে ধাওয়া দেয়। ফরিদপুর সদর থেকে আনা অতিরিক্ত পুলিশ, ভাঙ্গা থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
পরে সাংসদ নিক্সন চৌধুরীর মুঠোফোনে তার সমর্থকদের অনুরোধ করলে হাজারো জনতা ঘরে ফিরে যায়। পরিস্থিতি থমথমে থাকায় মোড়ে মোড়ে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
এব্যাপারে ফরিদপুর-৪ আসনের সাংসদ মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন বলেন, আমি কোন জনসভা দিলেই কাজী জাফরউল্লাহ সেখানে পাল্টা জনসভা দিবেন এটা তার রুটিন কাজ। কিন্তু তিনি জানেন না জনতার সামনে কোন অপশক্তিই বেশী সময় টিকে থাকতে পারে না। আমার সমর্থকদের আমি আমার সাধ্যমত শান্ত করেছি।
অপরদিকে মুঠোফোনে চেষ্টা করেও আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি প্রতিহত করা হবে’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ...

Skip to toolbar